ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীর হৃদরোগের ঝুঁকি পুরুষের তুলনায় ১২% বেশি

নতুন এক গবেষণা অনুসারে, টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের একই অবস্থার পুরুষদের তুলনায় হৃদরোগজনিত জটিলতা হওয়ার ঝুঁকি ১২ শতাংশ বেশি।

সম্প্রতি ডায়াবেটিস ইউকে প্রফেশনাল কনফারেন্সে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়। এতে বলা হয়, টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের ডায়াবেটিস নেই এমন নারীদের তুলনায় ২০ শতাংশ বেশি হৃদরোগজনিত জটিলতার ঝুঁকি রয়েছে।

আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতে, পুরুষদের তুলনায় ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের হৃদরোগের ঝুঁকি দ্বিগুণ বেড়ে যায়।

গবেষণায় দেখা গেছে, টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের ডায়াবেটিসে আক্রান্ত পুরুষদের তুলনায় স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ এবং উচ্চ কোলেস্টেরল হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের একই বয়সের পুরুষদের তুলনায় ওজন বেশি হয়। ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারের চিকিৎসক অধ্যাপক মার্টিন রুটার বলেছেন, অল্প বয়সে যেসব নারীর টাইপ টু ডায়াবেটিস ধরা পড়ে তাদের সম বয়সী পুরুষদের তুলনায় গড় ওজন ২৪ কিলো বেশি থাকে।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, চিকিৎসায় অসমতা পুরুষদের তুলনায় ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের জীবন ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। অনেক নারীয় সময়মতো চিকিৎসা নেন না বা পান না। যার কারণে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে পড়ে।

বিশেষজ্ঞদের মতে,পরিস্থিতি মোকাবিলায় ডায়াবেটিসের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি জানার পাশাপাশি চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

ডায়াবেটিসের সাধারণ লক্ষণগুলি হল হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া, অত্যধিক ক্ষুধা ও পিপাসা লাগা, ঘন ঘন প্রস্রাব, বাবরবার গোপনাঙ্গে সংক্রমণ, ঝাপসা দৃষ্টি, চোয়ালে, পিঠে বা ঘাড়ে ব্যথা এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে ফুলে যাওয়া।

ডায়াবেটিস নিয়ে কাদের বেশি সতর্ক হওয়া দরকার?
যেসব নারীদের ডায়াবেটিসের পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে, ওজন বেশি , যারা ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে কাজ করেন, যাদের বয়স ৪৫-এর উপরে, গর্ভাবস্থার পরে যাদের ওজন বেড়েছে, যাদের পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম আছে এবং উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ ট্রাইগ্লিসারাইড এবং কম এইচডিএল আছে তাদের ডায়াবেটিসের লক্ষণ দেখলেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি । সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

Leave a Comment