দুই মেগা প্রকল্পের মালামাল নিয়ে মোংলা বন্দরে তিন জাহাজ !

দেশের আলোচিত রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মেশিনারিজ মালামাল ও বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে ব্রিজের স্টিল পাইপ নিয়ে তিনটি বিদেশি জাহাজ মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে।

রোববার (২২ জানুয়ারি) দুপুরে ও বিকালে বন্দরের ৭ নম্বর জেটিতে বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে ব্রিজের ৩ হাজার ৩শ’ ৫২ দশমিক তিন আট নয় মেট্রিকটন স্টিল পাইপ নিয়ে নোঙর করে পানামা পতাকাবাহী ‘এমভি কুই ইয়া শান’ জাহাজ। প্রায় একই সময়ে বন্দরের ৮ নম্বর জেটিতে পানামা পতাকাবাহীর ‘লিবার্টি হারভেস্ট’ নামে আরও একটি জাহাজ নোঙর করে।

এই জাহাজে দেশের বর্তমান সময়ের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪ হাজার ৭শ ১৬ দশমিক শূন্য দুই ছয় মেট্রিক টন মেশিনারিজ পণ্য আনা হয়েছে। এদিন বিকালে বন্দরের ৯ নম্বর জেটিতে নোঙর করেছে রূপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মেশিনারি পণ্য নিয়ে রুশ পতাকাবাহী ‘এমভি কামিল্লা জাহাজ’। ৩ হাজার ৬শ’ ৩৩ মেট্রিক টন পণ্য নিয়ে জাহাজটি নোঙর করে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বিদেশি জাহাজ এম ভি কুই ইয়া শান জাহাজের শিপিং এজেন্ট হক অ্যান্ড সন্সের খুলনাস্থ মো. শওকত আলী বলেন, ২৩৮ প্যাকেজে ৩ হাজার ৩শ’ ৫২ মেট্রিক টন পণ্য নিয়ে দুপুরের দিকে জাহাজটি নোঙর করে। পরে সেসব পণ্য খালাস প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ পর্যন্ত তাদের অধীনে ১৩টি জাহাজে করে দুই হাজার ৫শ’ ৬০ প্যাকেজের ৪৬ হাজার ৩শ’ ৫১ মেট্রিক টন স্টিল পাইপ আনা হয়েছে।

অন্যদিকে রূপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মেশিনারি পণ্য নিয়ে আসা বিদেশি জাহাজ ‘লিবার্টি হারভেস্ট’র শিপিং এজেন্ট ইন্টারপ্রেটের পরিচালক মো. শাহীন ইকবাল জানান, রূপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামাল নিয়ে রোববার বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে বন্দরের ৮ নম্বর জেটিতে নোঙর করার পর জাহাজ থেকে পণ্য খালাস শুরু হয়েছে। চারদিনের মধ্যে এসব পণ্য পুরোপুরি খালাস হবার কথা রয়েছে। তারপর পণ্যগুলো সড়ক ও নৌ পথে পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন রূপপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পৌঁছে দেয়া হবে। এই জাহাজে ১৪ হাজার ৪শ’ ৭৫ প্যাকেজের ৪শ’ ১৬ মেট্রিক টন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মেশিনারি পণ্য আনা হয়েছে।

এদিন বিকালের দিকে রুশ পতাকাবাহী ‘এমভি কামিল্লা’ জাহাজে করে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাঁচ হাজার ৫শ’ ৬ প্যাকেজের ৩ হাজার ৬শ’ ৩৩ মেট্রিক টন পণ্য আনা হয়েছে বলে জানান এই জাহাজের শিপিং এজেন্ট কনভেয়ার শিপিং লাইসেন্সের ম্যানেজার অপারেশন সাধন কুমার চক্রবর্তী।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, পদ্মাসেতুর সুবাদে দেশের নির্মাণাধীন প্রায় সব প্রকল্পের মালামাল এখন বিশেষ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মোংলা বন্দর দিয়ে খালাস হচ্ছে। দ্রুত সময়ে আধুনিক পদ্ধতিতে দক্ষ জনবল দিয়ে এসব পণ্য খালাস হওয়ায় ব্যবসায়ীরা এই বন্দর ব্যবহারে দিনে দিনে বেশি আগ্রহী হচ্ছে। আমরা বন্দর ব্যবহারকারীদের সকল সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিতে নানা প্রকল্প গ্রহণ করেছি। এখনো বেশ কয়েকটি প্রকল্প চলমান। এগুলো সম্পন্ন হলে ব্যবসায়ীরা আরও বেশি সুবিধা পাবে এবং বন্দর ব্যবহারে আরও বেশি আগ্রহী হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *