কাজে দেরি হলে মা’রধর-গরম পানি, ঝ’লসানো পা নিয়ে বাসা থেকে লাফ !

শিশু গৃহকর্মী সুমাইয়া আক্তারকে (১২) মারধর করে গায়ে গরম পানি দিয়ে ঝ;লসে দিয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবু তাহেরের স্ত্রী তাহমিনা তুহিন। মেয়েটি নিজেকে বাঁচাতে দোতলা থেকে লাফিয়ে পড়ে। মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) রাত ৮টায় কুমিল্লা নগরীর ধর্মপুর ভিক্টোরিয়া কলেজ সংলগ্ন পূর্ব দৌলতপুর এলাকার এসআরটি প্যালেসের বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা ৯৯৯-এ কল করলে পুলিশ দগ্ধ ওই শিশু গৃহপরিচারিকাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নিয়ে যায়। মেয়েটির বাড়ি কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার তেবাড়িয়া গ্রামে।

আহত মেয়েটি জানায়, আবু তাহেরের মেয়ে ফাহমিদা তিমুর ঢাকার বাসা ও আবু তাহেরের কুমিল্লার বাসায় চার বছর ধরে কাজ করছে সে। কাজে দেরি হলে তাহেরের স্ত্রী ও মেয়ে ফাহমিদা তাহের তিমু জালি বেত দিয়ে মারধর করে এবং গায়ে গরম পানি ঢেলে দেয়। সোমবার গরম পানি ঢেলে পা ঝ’লসে দিয়েছে। মঙ্গলবারও মা’রধর করার পর গরম পানি ঢালতে চাইলে সে দোতলা থেকে লাফিয়ে পড়ে। পাশের মেয়েদের হোস্টেলে গিয়ে আশ্রয় নেয়।

হোস্টেলের এক মেয়ে বলেন, আমরা ওপরে চিৎকার শুনতে পাই। পরে ছোট একটি মেয়ে আমাদের রুমে ঢুকে আশ্রয় চায়। তার পা ঝ’লসে যাওয়া। পরে আমরা পুলিশে জানাই। আবু তাহেরের স্ত্রী তাহমিনা তুহিন মেয়েটিকে আটকে রাখতে চেয়েছেন। স্থানীয়দের বাধায় পারেননি।

ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবু তাহের বলেন, মেয়েটি আমাদের দুরসম্পর্কের আত্মীয়। আমার মেয়ের শ্বশুরবাড়ি দেবিদ্বারে তার বাড়ি। আমি ও আমার স্ত্রী খুব অসুস্থ। কিছুদিন আগেও আইসিইউতে ছিলাম। আজ আমি বাইরে ছিলাম। আমার স্ত্রী জানিয়েছেন তাকে মারধর করেননি। সে পাপোষে পা পিছলে পড়ে যায়। এসময় পায়ে একটু গরম পানি পড়েছে। পাশের হোস্টেলের একটি মেয়ে বিষয়টিকে বড় করেছে।

কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ সনজুর মোর্শেদ বলেন, মেয়েটির পা ঝলসে গেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অধ্যক্ষের স্ত্রীকে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *