অবশেষে ফারুকীর আল্টিমেটাম, তিশার দাবি

খ্যাতিমান নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। গুলশানের হলি আর্টিজান নিয়ে বানানো তার ‘শনিবার বিকেল’ ছবিটি প্রায় চার বছর ধরে নানান বাহানায় সেন্সরে আটকে আছে। সম্পন্ন হওয়ার পরও এখনো প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শনীর অনুমতি পায়নি সিনেমাটি। চলচিত্রটি দীর্ঘদিন ধরে আটকে থাকায় বিভিন্ন সময় দুঃখ প্রকাশ করেছেন নির্মাণের মাধ্যমে তারকা খ্যাতি লাভ করা এই নির্মাতা। তবে এবার অনেকটা কঠিনভাবে দাবি জানালেন—আগামী ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শনিবার বিকেল বাংলাদেশের মানুষের সামনে হাজির করতে দিতে হবে।

গতকাল মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) ফেসবুক ভেরিফায়েড প্রোফাইলে এক স্ট্যাটাসে এই দাবি জানান ফারুকী। সেখানে তিনি বলেন, ‘২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শনিবার বিকেল বাংলাদেশের মানুষের সামনে হাজির করতে দিতে হবে। কথা আমাদের একটাই। এর আগে আমাদের আড়েঠাড়ে বলা হয়েছে, উনারা চান না বহির্বিশ্বের মানুষের কাছে শনিবার বিকেল ছবিটা যাওয়ার মাধ্যমে ঐ দুঃসহ স্মৃতি আবার ফিরে আসুক। আই মিন সিরিয়াসলি?’

ফারুকী জানান,‘ইউটিউবে এই বিষয়ে হাজার হাজার ভিডিও আছে। উনারা ভাবছেন একটা সিনেমা আটকিয়ে এই ঘটনা ধামাচাপা দিবেন। আর শনিবার বিকেল তো বিদেশে দেখানোই হচ্ছে। কোথাও ভাবমূর্তি খসে পড়ার ঘটনাতো শুনিনি। হলিউড রিপোর্টারতো তাদের রিভিউতে আপনাদের নিয়ে হাসাহাসি করছে। তারা বলছে, এই ছবি দেখে তারা বুঝেনি ভাবমূর্তি কেমনে খসবে। তাদের মনে হয়েছে ভাবমূর্তির যদি কিছু হয় এই ছবির ফলে সেটা হতে পারে ভাবমূর্তি বৃদ্ধি।’

পরবর্তীতে এই নির্মাতা তিনটি প্রশ্ন রাখেন। তিনি বলেন, ‘১. ফেব্রুয়ারির ৩ তারিখ যে ফারাজ মুক্তি পাবে। এখন আপনি কিভাবে ঐটা ধামাচাপা দিবেন? ২. শনিবার বিকেলের প্রথম সেন্সর প্রদর্শনীর পর সেন্সর বোর্ড ছবির প্রশংসা করে বলেছেন দ্রুত সার্টিফিকেট দিবেন। কার ইশারায় এটার দ্বিতীয় প্রদর্শনী হলো, সেটার তদন্ত কি কোনো দিন হবে না?’ সবশেষ ফারুকী বলেন, ‘ ৩. বিদেশী কলাকুশলী আনার জন্য শুটিংয়ের আগে আমাদের তথ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে হয়েছিল। যেখানে আমাদের স্ক্রিপ্ট জমা দিতে হয়েছিল। স্ক্রিপ্ট পড়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে আমাদের অনুমোদন দেয়া হয়েছিল, উৎসাহ দেয়া হয়েছিল। যেটা আজকে অনুমোদন পায়, কালকে সেটা নিষিদ্ধ হয় কিসের ভিত্তিতে?’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *