পথহারা সেই মেয়েটি বাবা-মায়ের কাছে ফিরল !

খুলনার সোনাডাঙ্গা এবং শিববাড়ীর মাঝামাঝি সামি হাসপাতালের সামনে এক তরুণীর দেখা মেলে। উদ্ভ্রান্তের মতো তার চলাফেরা। বয়স আনুমানিক ১৬-১৮ বছর হবে। কোনো কথা বলে না। তাকে কেউ চেনেও না। অনেকের চোখে মেয়েটি ‘পাগলি’ ছাড়া আর কিছুই নয়।

তাকে ঘিরে উৎসুক কিছু মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে। কারণ মেয়েটিকে দেখে ভালো পরিবারের সন্তান বলেই মনে হয়। পরে জানা যায়, মেয়েটির নাম ঈশিতা। তার বাড়ি গাজীপুরে। কিন্তু সে খুলনা কিভাবে এলো? মেয়েটির পরিবারের সন্ধান পেতে ফেসবুকভিত্তিক বিভিন্ন গ্রুপ প্রচারণা চালায়। বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিতে কাজ শুরু করে ‘ওয়াব (উই আর বাংলাদেশ)’ নামের একটি গ্রুপ।

পরে মেয়েটির পরিবারের সন্ধান পেতে মেয়েটির ছবি দিয়ে ফেসবুকে প্রচারণা চালানো হয়। তাকে চিকিৎসা দিতে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আনন্দের খবরটি দিয়েছেন ওয়াবের সদস্যরা। তারা অবশেষে মেয়েটিকে তার পরিবারের হাতে তুলে দিতে পেরেছেন।

একটি পোস্টে বলা হয়, ‘গতকাল দুপুর থেকে এখন পর্যন্ত- মানে সকাল পর্যন্ত ঘুমাইনি। সেই সাথে বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক ঘুমায়নি। গাজীপুর থেকে মেয়েটির বাবা-মা এসেছেন। আমার সাথে প্রত্যেক ৩০-৪০ মিনিট পরপর তাদের কথা হয়েছে। মেয়েটিকে মা-বাবার কাছে হস্তান্তর করতে সক্ষম হয়েছি আমরা, আলহামদুলিল্লাহ। এটাই ভালো কাজের তৃপ্তি। আলো আসবেই, না আসলে সবাই মিলে টেনে আনব ইনশাআল্লাহ।’

এর আগে ফেসবুকে ‘এসপি বাংলা টিভি’, ‘অন্যরকম বাংলাদেশ (এআইবি)’ কিংবা ‘গাজীপুর-ঢাকা ট্রেন প্যাসেঞ্জার্স ফোরাম’ নামের বিভিন্ন গ্রুপে প্রচারণা চালানো হয়। এসবের কল্যাণেই মেয়েটির বাবা-মায়ের সন্ধান মেলে। একটি পোস্টে বলা হয়েছে, ‘আলহামদুলিল্লাহ, সেই মেয়েটির পরিবারের সন্ধান পেয়েছি আমরা। ওর মায়ের সাথে কথা হয়েছে। ইতোমধ্যে গাজীপুর থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছে ওর বাবা-মা। ওর বাড়ি গাজীপুর। আমাদের হেফাজতে খুলনা মেডিক্যালে আছে বোনটি। বিস্তারিত জানাবো।

আলো আসবেই ইনশাল্লাহ। We Are Bangladesh (WAB)। এই মেয়েটিকে খুলনা শিববাড়ী এবং সোনাডাঙ্গার মাঝামাঝি সামি হাসপাতালের সামনে পাওয়া গিয়েছে। মেয়েটি কথা বলছে না। বয়স আনুমানিক ১৬-১৮ মনে হচ্ছে। সম্ভবত মানুষিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন। দেখে মনে হচ্ছে ভালো পরিবারের মেয়ে। যদি কেউ পরিচয় জানতে পারেন তাহলে সোনাডাঙ্গা থানায় যোগাযোগের অনুরোধ করা হলো!’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *