আর্জেন্টিনা বাংলাদেশে আসবে, জানেন না ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

কাতার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাকে বাংলাদেশে আনার ব্যপারে মুখে কুলুপ এঁটেছে বাফুফে। কেউ কথা বলতে রাজি নয়। ফোন ধরতেও রাজি নয়। এমনকি আর্জেন্টিনা দলের বাংলাদেশে আসার খবর নিয়ে কিছুই জানেন না ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলও । এছাড়া এ বিষয়ে বাফুফে নাকি আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে কিছুই জানায়নি। বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের ঢাকায় আনতে খরচ হবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। এত অর্থ খরচ করে, মেসিদের আনলে তা দেশের ফুটবলের উন্নতিতে কী ভূমিকা রাখবে? তা নিয়ে সমর্থকদের মতো ধোঁয়াশায় আছেন প্রতিমন্ত্রীও।

পরিস্থতি এমন এক পর্যায়ে গিয়েছে, এখন বিপদেই রয়েছেন বাফুফের কর্মকর্তারা। ফুটবল অঙ্গনে গুঞ্জন রয়েছে, বাফুফে এখন আর্জেন্টিনাকে কনফার্ম করতে চাইছে। আগে আর্জেন্টিনা রাজি হোক, তারপরও অন্য কথা। তবে সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন ফেডারেশনকে সব ধরনের সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। এর আগে, মরুর বুকে ঝড় তোলার পর বাংলাদেশ মাতাতে আসছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। গত কয়েকদিন এমন খবরে সরগরম দেশের ফুটবলপাড়া।

তবে বাফুফে আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগেই গণমাধ্যমে খবর ছড়িয়ে পড়ায় কিছুটা বিপাকে পড়তে হয় ফেডারেশনকে। যদিও দেশের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে, সঠিক কক্ষপথেই আছে তারা। জুনেই আর্জেন্টিনাকে বাংলাদেশে আনার চেষ্টা চলছে জোরেশোরেই। তবে দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এতবড় খবর অথচ এ বিষয়ে নাকি কিছুই জানে না যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। কোনো বিদেশি দলকে খেলতে আনতে চাইলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হয় মন্ত্রণালয়কে। সেখানে অন্ধকারে খোদ মন্ত্রীই।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জানান, ‘আমাদের মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া কখনও কোনো বিদেশি দলকে আনতে পারবে না। আমাদের আন্তঃমন্ত্রণালয়ে মিটিং করতে হয়, তাদের সিকিউরিটি থেকে শুরু করে আমাদেরই নির্ধারণ করতে হয়। কিন্তু এই বিষয়ে আমরা অফিশিয়ালি কিছুই জানি না। তাদের অগ্রগতিটা কি সেটাও জানি না। যেহেতু আমরা অফিশিয়ালি কিছু জানি না, তাই আপনাদের কিছু বলতে পারছি না।’

আর্জেন্টিনাকে বাংলাদেশে আনতে চাইলে গুনতে হবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। বাফুফের যেখানে নুন আনতে পানতা ফুরোয়, সেখানে হঠাৎ এত বড় খরচের বোঝা কাঁধে নিয়ে ফুটবলের উন্নতি কতটা সম্ভব হবে। এমন প্রশ্ন ফুটবলপ্রেমীদের মত প্রতিমন্ত্রীরও? ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরো জানান , ‘যেখানে আমাদের ফুটবল ফেডারেশন অর্থের জন্য চলতে পারছে না, সেখানে এত টাকা দিয়ে তাদের দেশে এনে তা কতটুকু ফুটবলের জন্য ভালো হবে, তা আমিও আপনাদের মতো সন্দেহের মধ্যে রয়েছি।’তবে, বাফুফে চাইলে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাসও দিয়েছেন রাসেল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *